গণসংহতি আন্দোলনের ১৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী: দেশ ও জনজীবন রক্ষায় গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ও সংবিধান প্রতিষ্ঠায় বৃহত্তর ঐক্য গড়ে তুলুন,

0
117
গণসংহতি আন্দোলনের ১৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী: দেশ ও জনজীবন রক্ষায় গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ও সংবিধান প্রতিষ্ঠায় বৃহত্তর ঐক্য গড়ে তুলুন,

প্রেস বিজ্ঞপ্তি

লুটপাট-দুর্নীতি-ক্রসফায়ার-দমন-পীড়ন রুখে দাঁড়ান
দেশ ও জনজীবন রক্ষায় গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ও সংবিধান প্রতিষ্ঠায় বৃহত্তর ঐক্য গড়ে তুলুন

গণসংহতি আন্দোলনের ১৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে
কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে জাতীয় মুক্তিসংগ্রামের সকল শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন

আজ ২৯ আগস্ট ২০২০, শনিবার গণসংহতি আন্দোলনের ১৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি, নির্বাহী সমন্বয়কারী (ভারপ্রাপ্ত) আবুল হাসান রুবেল, রাজনৈতিক পরিষদের সদস্য তাসলিমা আখ্তার, সম্পাদকমÐলীর সদস্য বাচ্চু ভূইয়া, মনির উদ্দীন পাপ্পু, জুলহাসনাইন বাবু, কেন্দ্রীয় সদস্য দীপক রায়, সংগঠক বেলায়েত শিকদার, আলিমুল কবীর, ইমরাদ জুলকারনাইন, আইনুল হকসহ বিভিন্ন স্তরের নেতা-কর্মীরা সকাল ১০ টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে জাতীয় মুক্তিসংগ্রামের সকল শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।
শ্রদ্ধা নিবেদন কালে প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি বলেন, “বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার দেশে ভয়াবহ ফ্যাসিবাদ, লুটপাটতন্ত্র এবং দমন-পীড়ন ও নির্মমতার রাজত্ব কায়েম করেছে। মানুষের ন্যূনতম অধিকার ভোটাধিকার নেই। ঐতিহাসিক ১৯৭০ এর নির্বাচনে যে আওয়ামী লীগ ব্যাপক সংখ্যাগরিষ্ঠতায় পাকিস্তান রাষ্ট্রে ক্ষমতায় যেতে না পেরে পাকিস্তান রাষ্ট্রকে ভেঙ্গে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় নেতৃত্ব দিয়েছিল; সেই সংগঠন আজ জনগণকে ক্ষমতাহীন করেছে এবং রাষ্ট্রযন্ত্রকে কাজে লাগিয়ে নজিরবিহীন ভোট ডাকাতির মাধ্যমে মানুষের সকল অধিকার কেড়ে নিয়েছে। লুটপাট-দুর্নীতির এমন মহোৎসব সৃষ্টি করেছে যে করোনা মহামারীতেও স্বাস্থ্য উপকরণ নিয়ে দুর্নীতি চলছে। মুখে মাস্ক দিয়ে মানুষের শ্বাস নিতে যা কষ্ট হচ্ছে, সরকারের শাসনেই মানুষের দম বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। এ সরকার দুর্নীতির ওপরই দাড়িঁয়ে আছে, এদের পক্ষে দুর্নীতি দূর করা সম্ভব নয়। তিনি আরো বলেন, মুক্তিযুদ্ধে জনগণের আকাক্সক্ষার যে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল তা রাষ্ট্রের ৫০ বছরেও হয়নি। ভোটের বৈধতা নেই, জনসমর্থন নেই এবং প্রতিনিয়ত রাষ্ট্র ও জনগণকে বিপদজ্জনক ব্যবস্থায় নিয়োজিতকারী এই সরকার জনগণের ঘাড়ের ওপর চেপে বসে আছে। দেশ পরিচালনা নয়; গুম, খুন, বিচারবহির্ভূত হত্যা, টাকা পাচার, অব্যবস্থাপনা, বিচারহীনতা, অরাজকতা, ধ্বংস, লুটপাটই সরকারের প্রধান কাজ। কাজেই এই দুঃশাসন রুখে দিয়ে জনগণের একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করতে হলে দেশপ্রেমিক শক্তির আশু করণীয় হলো এই সরকারের উচ্ছেদ ঘটানো। রাজপথে জনগণের ঐক্যই এ বিরাজমান স্বৈরতান্ত্রিক ব্যবস্থার পরিবর্তন ঘটাতে পারে। তিনি সকলকে জনগণের শক্তির সর্বস্তরে এক বৃহত্তর ঐক্য গড়ে তুলে এই ফ্যাসিবাদী দুঃশাসন মোকাবেলা করে দেশ ও জনজীবন রক্ষার আহŸান জানান। এবং গণসংহতি আন্দোলন সেই লক্ষ্যেই কাজ ও সংগ্রাম গড়ে তুলতে বদ্ধ পরিকর।”
প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সংগঠনের সকল সদস্য, শুভানুধ্যায়ী এবং সারা দেশের জনগণকে জানাই সংগ্রামী শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

আজকের আলোচনা
‘সংকটে দেশ ও জনজীবন: মুক্তি কোন পথে’ শীর্ষক অনলাইন আলোচনা ২৯ আগস্ট ২০২০ রাত ১০টা।
সভাপতি- প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি।
সংগঠনের রাজনৈতিক পরিষদের অন্যতম সদস্য তাসলিমা আখত্ার- এর সঞ্চালনায় এতে আলোচনা করবেন বাসদের সাধারণ সম্পাদক কমরেড খালেকুজ্জামান, নাগরিক ঐক্যের আহŸায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, বিপ্লবী ওয়ার্কাস পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, নিউ এইজ পত্রিকার সম্পাদক নুরুল কবীর ও ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুর।

বার্তা প্রেরক
বাচ্চু ভূইয়া
সদস্য, কেন্দ্রীয় দপ্তর উপকমিটি এবং
সদস্য, কেন্দ্রীয় সম্পাদকমÐলী, গণসংহতি আন্দোলন